অস্কারনামা: ২০১৯

গেলো ২৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের ডলবি থিয়েটারে জাঁকজমকভাবে হয়ে গেলো চলচ্চিত্রে সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার অ্যাকাডেমি। সঞ্চালকবিহীন এই আসরটি প্রতিবার থেকে ছিলো একটু হলেও ভিন্ন। এবারে বিভিন্ন বিভাগে অস্কার জেতা ছবিগুলো নিয়ে চলুন জেনে আসা যাক।

গ্রিন বুক: শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, মৌলিক চিত্রনাট্য ও পার্শ্ব অভিনেতা

মার্কিন হাস্যরসাত্মক ড্রামা চলচ্চিত্র গ্রিন বুক ছবিটি পরিচালনা করেছেন পিটার ফ্যারেলি। ষাটের দশকের ডিপ সাউথের পটভূমিতে নির্মিত ছবিটিতে দেখানো হয়েছে কৃষ্ণাঙ্গ ধ্রুপদী ও জ্যাজ পিয়ানোবাদক ডন শার্লি (মাহারশালা আলি) ও তার ইতালীয়-মার্কিন গাড়ি চালক ও দেহরক্ষী টনি ভালেলঙ্গার (ভিগো মর্টনসন) এর বিভিন্ন সফরের ঘটনা।

ছবিটি শ্রেষ্ট চলচ্চিত্র ও মৌলিক চলচ্চিত্রের খেতাব জেতার সাথে সাথে টনি চরিত্রে অভিনয় করা মাহারশালা আলি জিতে নেয় পার্শ্ব অভিনেতার খেতাব। ছবির প্রধান দুই চরিত্র এক সত্য ঘটনা নিয়ে আবর্তিত হয়েছে। ছবির গল্পের সত্যিকারের ব্যক্তির পরিবারের সদস্যরা ছবিটির বিরুদ্ধে বক্তব্যও দিয়েছেন। কিন্তু একাডেমি অ্যাওয়ার্ডস বর্ণবাদ নিয়ে ছবিটির বক্তব্য অগ্রাহ্য করেনি।

রোমা: শ্রেষ্ঠ পরিচালক, চিত্রগ্রহণ ও শ্রেষ্ঠ বিদেশী ভাষার চলচ্চিত্র

মেক্সিকান চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক, চিত্রনাট্যকার, চিত্রগ্রাহক এবং চলচ্চিত্র সম্পাদক আলফোনসো কুয়ারোন। প্রতিশযশা এই চলচ্চিত্র পরিচালক পূর্বে নির্মান করেছেন চিলড্রেন অব ম্যান ও গ্রাভিটির মত দুনিয়া কাপানো চলচ্চিত্র। এবারের রোমা ছবিটি তিনি পরিচালনার পাশাপাশি চিত্রগ্রহন ও সহ-সম্পাদনাও করেছেন। ড্রামা জনরার চলচ্চিত্র হলেও রোমা মূলত একটি সেমি-অটোবায়োগ্রাফিক্যাল ড্রামা যেখানে পরিচালকের জীবনের বিশেষ এক সময়ের বিশেষ কিছু ঘটনা, বিশেষ স্থান ও বিশেষ এক চরিত্রের অবতারণা ঘটানো হয়েছে। শ্রেষ্ট পরিচালক ও চিত্রগ্রহনের পুরস্কার জেতার পাশাপাশি আলফোনসো কুয়ারোন ছবিটি দিয়ে জিতে নিয়েছেন শ্রেষ্ট বিদেশী ভাষার ছবি। ছবিটি প্রথমবার দর্শকদের জন্য মুক্তি পেয়েছিলো অনলাইন প্লাটফর্ম নেটফিক্সে।

বোহেমিয়ান‍্যাপসোডি: শ্রেষ্ঠ অভিনেতা, শব্দ সম্পাদনা, শব্দ মিশ্রন ও চিত্র সম্পাদনা

ব্রিটিশ রক ব্যান্ডদল কুইনের বিখ্যাত একটি গান বোহেমিয়ান র‌্যাপসোডি! গানটির নাম থেকে দেয়া হয়েছে ছবির নাম, কুইন ব্যান্ডের কিংবদন্তি গায়ক ফ্রেডি মার্কারির চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয়ের সুবাদে সেরা অভিনেতার খেতাব জিতেছেন রামি মালিক। এইডসে আক্রান্ত হয়ে ১৯৯১ সালে মৃত্যুবরণ করেন গায়ক ফ্রেডি। ছবিতে ব্যান্ডের গায়ক ফ্রেডি মার্কারির জীবন, ব্যান্ডে যোগদান, ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে তাদের পরিবেশনা সহ নানা উল্লেখযোগ্য ঘটনা দারুনভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন ৩৭ বছর বয়সী মিশরীয় বংশোদ্ভূত-আমেরিকান এই অভিনেতা। ছবিটি আর জিতেছে সেরা শব্দ সম্পাদনা, শব্দ মিশ্রন ও চিত্র সম্পাদনার পুরস্কার।

দ্য ফেভারিট: শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী

দ্য ফেভারিট ছবিতে অ্যানি চরিত্রে অভিনয় করে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার জিতেছেন অলিভিয়া কোলম্যান। ১৭০২-১৪ সাল পর্যন্ত গ্রেট ব্রিটেনের রানি ছিলেন এই অ্যানি। সেই সময়টায় স্কটল্যান্ড ও ইংল্যান্ড মিলে ছিল গ্রেট ব্রিটেন। নানা কারণে সতেরোটি বাচ্চা নষ্ট হয় অ্যানির। অসুখী একসঙ্গে খ্যাপাটে এক রানির চরিত্রে দূর্দান্ত অভিনয় করেছেন ৪৫ বছর বয়সী অলিভিয়া। ছবিটি পরিচালনা করেছেন ইয়োগস ল্যানথিমাস।

ইফ বিয়েলে স্ট্রিট কুড টক: শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী

ইফ বিয়েলে স্ট্রিট কুড টক’ সিনেমায় দুর্দান্ত অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী হয়েছেন রেজিনা কিং। আমেরিকান লেখক জেমস বাল্ডউইন রচিত একই নামের উপন্যাস থেকে নির্মিত রোমান্টিক ড্রামা চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন ব্যারি জেনকিনস। ছবিটিতে এক শ্বেতাঙ্গ নারীর সংগ্রামের গল্প দেখানো হয়েছে সেখানে সে তার বাগদত্তাকে ভুলভাবে ফাঁসানো এক অভিযোগ থেকে নির্দোষ প্রমাণ করে।

ব্ল্যাককক্লানসম্যান: শ্রেষ্ঠ গৃহীত চিত্রনাট্য

কু ক্লাক্স ক্লান, সংক্ষেপে কেকেকে আমেরিকার অতীতে ঘটে যাওয়া এবং বর্তমানে চলমান কয়েকটি আন্দোলনের সমষ্টি। সত্তর দশকে কৃষ্ণাঙ্গ ও অভিবাসী হটাতে শ্বেতাঙ্গদের এই কু ক্লাক্স ক্ল্যান আন্দোলনের ওপর নির্মিত ‘ব্ল্যাকক্ল্যান্সম্যান’ এর চিত্রনাট্যটি শ্রেষ্ট গৃহীত চিত্রনাট্য হিসেবে অস্কার জিতে নিয়েছে। গতবছর কান চলচ্চিত্র উৎসবে গ্রা প্রি জিতে নেয় ছবিটি। ছবিটি পরিচালনা করেছেন স্পাইক লি।

স্পাইডারম্যান ইন্টু দ্য স্কাইডার ভার্স: শ্রেষ্ঠ অ্যানিমেশন চলচ্চিত্র (ফিচার)

ওয়াল-ই, আপ, ফ্রোজেন, বিগ হিরো ৬, ইনসাইড আউট, জুটোপিয়া কিংবা কোকোর মতো ছবিগুলো পূর্বে অস্কারে জিতে নিয়েছিলো সেরা অ্যানিমেশন ভাষার পূর্নদৈর্ঘ্য ছবির পুরস্কার। এবারে অস্কার লুফে নিলো অ্যানিমেটেড স্পাইডারম্যান।

ফ্রি সলো: শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্র (ফিচার)

অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের ৯১তম আসরে সেরা প্রামাণ্যচিত্রের পুরস্কার জিতেছে ফ্রি সলো। প্রামাণ্যচিত্রটি যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন এলিজাবেথ চাই ভাসারহেলি ও জিমি চিন। ২০১৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার এক পর্বতের সামিটে পর্বতারোহী অ্যালেক্স হনোল্ডের একক আরোহনকে তুলে ধরা হয়েছে কাজটিতে।

পিরিয়ড অ্যাণ্ড অব সেন্টেন্স: শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্র (ছোট বিষয়বস্তু)

এবারে ছোট দৈর্ঘ্যের তথ্যচিত্রের জন্য অস্কার জিতলেন ইরানি-মার্কিন পরিচালক রাইকা জ়েটাবচি নির্মিত পিরিয়ড অ্যাণ্ড অব সেন্টেন্স। ছবিটির দৃশ্যায়ন হয় দিল্লি থেকে ৬০ কিলোমিটার দূরে হাপুর গ্রামের বাসিন্দাদের নিয়ে। ভারতের গ্রাম অঞ্চলে ঋতুস্রাব নিয়ে বিভিন্ন ধরনের ভ্রান্ত ধারণা এবং গ্রামের নারী-পুরুষকে সচেতন করার বিশেষ দিকগুলো তুলে ধরা হয়েছে ২৫ মিনিটের এ তথ্যচিত্রে।

স্কিন: শ্রেষ্ঠ লাইভ অ্যাকশন স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র

অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের এবারের আসরে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বিভাগে সেরা হয়েছে স্কিন। ছবিটি পরিচালনা করেছেন গাই নেটিভ।

বাও: শ্রেষ্ঠ অ্যানিমেশন চলচ্চিত্র (স্বল্পদৈর্ঘ্য)

এম্পটি নেষ্ট সিনড্রোমে ভোগা এক নারীর গল্পকে কেন্দ্র করে নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বাও এবারের অস্কারে শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য অ্যানিমেশন চলচ্চিত্রের খেতাব জিতে নিয়েছে। ছবিটি পরিচালনা করেছেন পিক্সার স্বল্পদৈর্ঘ্যগুলোর প্রথম নারী পরিচালক ডমি শি।

ব্লাক প্যানথার: শ্রেষ্ঠ মৌলিক সুর, নির্মাণ পরিকল্পনা, পোশাক পরিকল্পনা

ওয়াকান্ডার রাজা টি চাকার মৃত্যুর পর ক্ষমতায় আসেন টি চালা (ব্ল্যাক প্যানথার)। এটি পছন্দ করেনি ওয়াকান্ডার রাজপরিবারের বেশ কিছু মানুষের। তাই তাদের বিরুদ্ধে গৃহযুদ্ধ করতে দেখা যাবে টি চালাকে। এভাবে কাহিনী আস্তে আস্তে এগিয়ে যায় ইনফিনিটি ওয়ারের দিকে। দর্শকপ্রিয় ব্লকবাষ্টার এই ছবিটি এবারে সঙ্গীতে শ্রেষ্ঠ মৌলিক সুর, নির্মাণ পরিকল্পনা, পোশাক পরিকল্পনায় অস্কার জিতে নিয়েছে।

 অ্যা স্টার ইজ বর্ন: শ্রেষ্ঠ মৌলিক গান

লেডি গাগা ও ব্রাডলি কুপার জুটি বেধেছিলেন অ্যা স্টার ইজ বর্ন নামের একটি ছবিতে। এই জুটির কন্ঠে গাওয়া ছবিটিতে ব্যবহৃত শ্যালো গানটি এবারে অস্কারের সেরা মৌলিক গানের খেতাব জিতে নেয়।

ভাইস: শ্রেষ্ঠ পোশাক পরিকল্পনা

আমেরিকান ভাইস প্রেসিডেন্ট ডিক চেনির উপর নির্মিত চলচ্চিত্র ভাইস জিতে নিয়েছে শ্রেষ্ঠ পোশাক পরিকল্পনার অস্কার। ছবিতে ডিক চেনির ভূমিকায় অভিনয় করা ক্রিশ্চিয়ান বেলকে চেনির থেকে আলাদা ভাবা যায়নি চারবারের অস্কার জেতা গ্রেগ ক্যানম ও তার দলের মেকাপ ও চুল স্টাইলিং এর কারিশমায়।

ফাষ্ট ম্যান: শ্রেষ্ঠ ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট মার্কিন নভোচারী ও বৌমানিক নিল আর্মস্ট্রং কি আদৌ চাঁদে প্রথম মানব হিসেবে পা রেখেছিলো, নাকি তার পুরোটাই ছিলো নাসার সাজানো! সেই ১৯৬৯ সাল থেকে চলে আসা বিতর্ক নিয়ে আলোচনা না হলেও চন্দ্রাভিযান নিয়ে হলিউডে মুক্তি পায় বায়োপিক চলচ্চিত্র “ফার্ষ্ট ম্যান”। ছবিটির পরিচালনায় ছিলেন হুইপল্যাশ ও লা লা ল্যান্ড খ্যাত ড্যামিয়েন শ্যাজেল। ছবিটি কেন্দ্রীয় নিল আর্মষ্ট্রং চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন রায়ান গসলিং। ছবিটিতে চন্দ্রাভিযানের দৃশ্যগুলোতে দারুন ইফেষ্টের জন্য শ্রেষ্ট ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট অস্কার জিতে নিয়েছে ছবিটি।

আর্টিকেলটি দৈনিক ভোরের কাগজে পূর্বপ্রকাশিত

লেখকের অনুমতি ছাড়া সাইটে ব্যবহৃত সকল প্রকার লেখা পুনঃপ্রকাশ বেআইনি। জরুরী যোগাযোগে ইমেইলঃ altamishnabil@gmail.com

আরো পড়ুন...