গোয়েন্দা একেনবাবু এখন ঢাকায়!

“হাসিখুশী ভদ্রবেশী
আদ্যপান্ত ভেতো,
মধ্যবিত্ত শান্তচিত্ত
আলুপোস্ত তেতো।“

বাঙ্গালী পাঠক কিংবা দর্শক বরাবরই গোয়েন্দা জনরা বলতে দুর্বল। ফেলুদা, কাকাবাবু কিংবা ব্যোমকেশ সবারই আছে নায়কোচিত চেহারা এবং আদল। তবে এর বাইরেও চমক ঘটতে পারে! যেই ব্যক্তির কথা বলছি তার চেহারা আর পোষাকের আদল দেখে ভ্রম হতে পারে ফেলুদা সিরিজের কোন নতুন জটায়ুকে দেখছিনাতো! মাথাভর্তি টাক, ইয়া বড় গোফ আর গালভর্তি হাসি নিয়ে ছোটখাট মাঝবয়সী কোন মানুষকে যে জটায়ু ভিন্ন ভাবা যায়, আর সে নিজেই গোয়েন্দা হতে পারে এমন এক ভাবনার দুয়ার খুলে দেয় ওয়েব সিরিজ ‘একেনবাবু’। শ্রী ভেঙ্কেটেশ ফিল্মস এর মালিকানাধীন কোলকাতাভিত্তিক সাবস্ক্রিপশন মোবাইল অ্যাপ ‘হইচই’ এর জন্য নির্মিত হয়েছে এই ওয়েব সিরিজ যার প্রথম দুটি সিজন আগেই মুক্তি পেয়েছে। সম্প্রতি প্রকাশিত হলো এর তৃতীয় সিজন যার নাম “একেনবাবু ও ঢাকা রহস্য”!

নাম তার একেন্দ্র সেন। সেখান থেকে একেন সেন, তথা একেনবাবু। বাড়ি তার পশ্চিমবঙ্গের  কলকাতায়। মুখে বলেন সরকারের কেরানী তিনি, ছ্যাচড়া কাজ তার। কিন্তু আদতে তিনি সরকারি গোয়েন্দা। সরকারের দেয়া এক কাজেই ব্যাঙ্গালোরে আসেন, এরপর দুজন বাপিবাবু আর প্রমথ নামক দুজন সঙ্গী জুটিয়ে সেখানেই তিনজন মিলে থাকেন।

সাধারণত গোয়েন্দাগল্প থেকে একেনবাবু অনেক দিক দিয়েই আলাদা। গোয়েন্দা সিরিজের ট্রেডিশনাল কনসেপ্টের মত এখানে একেন সেনের তেমন কোন সহকারী নেই, যেমনটা ফেলুদার তোপসে, ব্যোমকেশের অজিত কিংবা শার্লক হোমসের ওয়াটসন ছিলো। তবে তার দুজন সঙ্গী আছে বটে! সাধারনত গোয়েন্দা চরিত্রদের সাথে নায়কোচিত যে ব্যাপারটা লক্ষ্য করা যায় সেটির উপস্থিতি একেবারেই একেনবাবুতে নেই। ভিন্নধর্মী এই গোয়েন্দার সাথে কেবল একজনেরই তুলনা চলে, আর সে হলো ব্রিটিশ লেখিকা আগাথা ক্রিস্টির চরিত্র এরকুল পোয়ারোর (Hercule Poirot)।

একেনবাবুর গোয়েন্দা সিরিজটির আসল গল্পের লেখক ওপার বাংলার প্রবাসী লেখক সুজন দাশগুপ্ত। লেখকের বর্ণনা অনুযায়ী একেন সেনের মাথায় উস্কোখুস্কো চুল, ক্যাংলা শরীর। গায়ে পরনে নোংরা শার্ট, দলামোচা করা কোট। ওদিকে হইচই অ্যাপের একেন বাবুর বর্ননাতো লেখার শুরুতেই দেয়া হলো। গল্পের সাথে আলাদা করে একেনবাবুকে অনেকটা জটায়ুর লুক দেয়টা পুরাটাই পরিচালকের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে করা। এক লাইনে বললে সিরিজটির একেনবাবু যেন বুদ্ধিতে ফেলুদা কিন্তু দেখতে জটায়ু।

একেনবাবু ও ঢাকা রহস্যে দেখা যায় ইতিমধ্যে একেনবাবুর সব অভিযান নিয়ে বই লিখে জনপ্রিয় হয়েছেন বাপিবাবু। একেন সিরিজের নতুন বই উদ্ধোধন করতে বাংলাদেশী প্রকাশকের আমন্ত্রণে একেন, বাপিবাবু ও প্রমথ এসেছেন ঢাকায়। কিন্তু ঢেকিতো স্বর্গে গেলেও ধান ভানে। ঢাকায় আসার পর ঘটনাক্রমে একটি মৃত্যু সংগঠিত হলো এবং সেই সন্দেহজনক মৃত্যু খুন না স্বাভাবিকতা সেটা তদন্তের ভার নিলেন একেন সেন। এবারের এ সিজনটিতে আছে মোট ৫ টি পর্ব। তবে একেনবাবুর সঙ্গে বাপি এবং প্রমথের সম্পর্কের গভীরতা বুঝতে আগের দুই সিজন আগে দেখে নেয়া ভালো।

এবারের সিরিজে কলকাতার পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকেও রয়েছেন বড় সব অভিনেতারা। একেনবাবুর চরিত্রে দূর্দান্ত অভিনয় করেছেন যিনি তার নাম অনির্বাণ চক্রবর্তী। বাপি ও প্রমথ চরিত্রে অভিনয়ে ছিলেন যথাক্রমে সৌম্য ব্যানার্জী ও দেবপ্রিয় বাগচী। অন্যদিকে বাংলাদেশ থেকে অভিনয়ে ছিলেন ইয়াশ রোহান, শহিদুল আলম সাচ্চু, জিয়াউল হাসান কিসলু, শিমুল খান, নওশাবা। আর সিজনটি পরিচালনা করেছে অভিজিৎ চৌধুরী। ‘একেনবাবু ও ঢাকা রহস্য’ গত ২৮ নভেম্বর মুক্তি পেয়েছে হইচই অ্যাপে

পর্দায় যেরুপে একেনবাবুর আবির্ভাব এতে করে পরবর্তী ফেলুদা নির্মাতারা ছবিতে নির্দ্বিধায় জটায়ু চরিত্রে অনির্বাণ চক্রবর্তীকে ভেবে ফেলতে পারেন।  ইতিমধ্যে সৃজিত মুখার্জী ফেলুদা ওয়েব সিরিজ নির্মানের ঘোষণা দিয়েছেন এবং শোনা যাচ্ছে সেখানে জটায়ুরুপে থাকবেন একেনবাবু খ্যাত অনির্বাণ!

কেমন লাগলো নতুন এই গোয়েন্দাকে? কমেন্টে জানাতে ভুলবেননা… 🙂

লেখকের অনুমতি ছাড়া সাইটে ব্যবহৃত সকল প্রকার লেখা পুনঃপ্রকাশ বেআইনি। জরুরী যোগাযোগে ইমেইলঃ altamishnabil@gmail.com

আরো পড়ুন...