শেয়ারিং হ্যাপিনেস: অসাধারণ অনুভূতি

বিশ্বব্যাপী চলতে থাকা মহামারী কোভিড-১৯ কেড়ে নিয়েছে নানা প্রাণ, অজস্র মানুষকে করেছে কর্মহীন। আমাদের দেশে এর মাত্রাটা অনেকটাই বেশী। মহামারীটিতে সবচেয়ে বেশি আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছেন খেটে খাওয়া মানুষগুলো। এ পরিস্থিতিতে সরকারী উদ্যোগের পাশাপাশি সামাজিক দ্বায়বদ্ধতা থেকে নিজেদের জায়গা থেকে এগিয়ে আসছে অসংখ্য সংগঠন, বাদ যায়নি জেসিআই ঢাকা ওয়েষ্ট। আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগে খেটে খাওয়া এ জনগোষ্ঠীর কিছু পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে আয়োজন করা হয়েছে “শেয়ারিং হ্যাপিনেস” (Sharing Happiness) নামে একটি উদ্যোগ।

আধুনিক ঢাকার কিছুটা অদূরে হাজারীবাগ থানার অধীনে ঝাউচরের সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর এলাকাটি গড়ে উঠেছে বুড়িগঙ্গা নদীর তীর ঘেষেই। অত্র এলাকার বেশিরভাগ পুরুষদের পেশা রিকশা, ভ্যান চালনা, দিনমজুরিসহ বিভিন্ন নির্মাণকাজে দৈনিক ভিত্তিতে কাজ করা এবং মহিলাদের কাজ বালি আনা নেয়ায় জোগালি, ইট ভাঙ্গা, টাইলসে পুটিং লাগানো থেকে শুরু করে বাসা বাড়িতে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ। এখানকার বাচ্চাদের ৬০ শতাংশ স্কুলে পড়ে কিন্তু এদের বেশিরভাগ ৭ম শ্রেণী এর বেশী পড়ার সুযোগ পায়না, তার আগেই ঝড়ে পড়ে। শেয়ারিং হ্যাপিনেস উদ্যোগটি দিয়ে জেসিআই ঢাকা ওয়েষ্ট প্রাথমিকভাবে পাশে দাড়িয়েছে এই জনগোষ্ঠীর পাশে। হাজারিবাগ, উত্তরার বিভিন্ন এলাকা মিলে ২০০ এর অধিক পরিবারকে ঈদের আগে দুই সপ্তাহের বাজারের সাহায্য করা হয়েছে শেয়ারিং হ্যাপিনেস প্রজেক্ট থেকে।

জেসিআই ঢাকা ওয়েষ্ট হতে চেয়েছে কিছু পরিবারের ঈদের খুশীর কারণ, তবে এটিই যথেষ্ট নয়। সারাদেশের সকল বিত্তবানদের অনুরোধ সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়ানোর।

লেখকের অনুমতি ছাড়া সাইটে ব্যবহৃত সকল প্রকার লেখা পুনঃপ্রকাশ বেআইনি। জরুরী যোগাযোগে ইমেইলঃ altamishnabil@gmail.com

আরো পড়ুন...